বিকাশ লোন পেতে নিয়মিত বিকাশ ব্যবহার করতে হবে-ভাল হয় যে মোবাইল নম্বর দিয়ে ব্যাংক হিসাব খুলেছেন অথবা বিকাশ ডিপিএস করেছেন সেই নম্বর নিয়মিত ব্যবহার করলে অটোমেটিক লোন অফার আসবে – বিকাশ লোন ২০২৩

সিটি ব্যাংক বিকাশ লোন – ডিজিটাল ন্যানো লোন (“ঋণ”) একটি নির্দিষ্ট মেয়াদী ঋণ সুবিধা যেখানে সিটি ব্যাংক লিমিটেড (“সিটি ব্যাংক”) ঋণ- এর অর্থ প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান। বিকাশ লিমিটেড (“বিকাশ”) তার মোবাইল ফিনান্সিয়াল সার্ভিসেস প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে ঋণ বিতরণ এবং ঋণ পরিশোধের জন্য সিটি ব্যাংক-এর এজেন্ট হিসাবে কাজ করছে । এই ঋণ কেবল বিকাশ অ্যাপ ব্যবহারকারীরা পেতে পারেন। ঋণের জন্য বৈধ আবেদনকারীর বয়সসীমা ১৮-৬৫ বছরের মধ্যে হতে হবে। সিটি ব্যাংক এবং বিকাশ ঋণ পাবার যোগ্যতার মানদণ্ড নির্ধারন করবে।

বিকাশ ঋণে সুদ কত দিতে হবে? ঋণ বিতরণের সময় ০.৫৭৫% (ভ্যাট সহ) হারে ঋণ প্রসেসিং ফি ঋণের অর্থ হতে কেটে নেওয়া হবে হবে এবং প্রদত্ত ঋণের উপর বার্ষিক ৯% হারে সুদ প্রযোজ্য হবে। এই সুদের হার বাংলাদেশ ব্যাংকের গাইডলাইন অনুসারে সময়ে সময়ে ব্যাংকের একক বিবেচনায় পুনরায় নির্ধারণ করা হতে পারে। ১০ হাজার টাকা বিকাশ ঋণের জন্য তিন মাসে ৯% হারে আপনাকে ১২৭.৬৯ টাকা সুদ পরিশোধ করতে হবে। প্রতিমাসে ৩৩৭৫.৯০ টাকা হারে মাসিক কিস্তিতে তিন মাসে পরিশোধ করতে হবে। ঋণ গ্রহণের ২০ (বিশ) দিন পরই প্রথম কিস্তি পরিশোধ করতে হবে। কিস্তি পরিশোধ না করলে ২% হারে সুদ গুনতে হবে এবং প্রয়োজনে বিকাশ এবং সিটি ব্যাংক আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

যদি কোন ঋণ গ্রহিতা কিস্তি পরিশোধের তারিখের আগে কোন পরিমাণ ঋণ পরিশোধ করে তবে ঋণের হ্রাসকৃত বকেয়া বিবেচনা করে হালনাগাদ কিস্তির পরিমাণ পরবর্তী কিস্তি পরিশোধের তারিখে স্বয়ংক্রিয়ভাবে ঋণ গ্রহিতার বিকাশ অ্যাকাউন্ট হতে কেটে নেয়া হবে । ঋণ গ্রহিতার কাছ থেকে আদায়কৃত কিস্তি বা ঋণ নিম্নলিখিত ক্রমানুসারে গণ্য হবে: ১. নিয়মিত সুদের পরিমাণ ২. মূল পরিমাণ বকেয়া ৩. দেরীতে প্রদানের জন্য জরিমানা। যে কোন যুক্তিসঙ্গত কারণে এই শর্তাবলী পরিবর্তনযোগ্য। কেবলমাত্র প্রযোজ্য আইন সাপেক্ষে, সিটি ব্যাংক পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই এই চুক্তির যে কোন শর্ত পরিবর্তন করার অধিকার সংরক্ষণ করে। বিকাশ অ্যাপের মাধ্যমে ঋণ গ্রহিতাকে এরূপ পরিবর্তন অবহিত করা হবে।

লোন কি এক কিস্তিতে পরিশোধ করা যাবে? হ্যাঁ। যাবে। সরকার এবং নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষের নিয়ম এবং প্রবিধান পরিপালন করার জন্য, এখানে বর্ণিত শর্তাবলী পরিবর্তন করা হতে পারে এবং বিকাশ অ্যাপের মাধ্যমে ঋণ গ্রহিতাকে এরূপ পরিবর্তন হলে তা অবহিত করা হবে। একজন ঋণ গ্রহিতা তার চলতি ঋণ সম্পুর্ণ পরিশোধ না করে আরেকটি নতুন ঋণের আবেদন করতে পারবেন না। চলতি ঋণ সম্পূর্ণ পরিশোধ করে ঋণ গ্রহিতা আরেকটি ঋণের জন্য আবেদন করতে পারবেন।

বিকাশ ডিজিটাল লোন মাত্র ১ মিনিটেই শর্তে সম্মত হলে পাওয়া যায় / কোন কাগজপত্র জমা বা জামানতধারী বা গ্যারান্টর লাগে না।

একজন গ্রাহক বিকাশ অ্যাপ দিয়ে সিটি ব্যাংক থেকে ৫০০ টাকা থেকে ২০,০০০ টাকা পর্যন্ত লোন গ্রহণ করতে পারবেন। নিয়মিতভাবে লোন পরিশোধ করলে সিলিং বাড়তে থাকবে।

বিকাশ লোন ২০২৩ | বিকাশ থেকে কিভাবে লোন নেওয়া যায়?

মোবাইল ফিনান্সিয়াল সার্ভিসেস রেগুলেশন, ২০২২ অনুসারেই মূলত সিটি ব্যাংক বিকাশের মাধ্যমে ঋণ দিচ্ছে।

লোন গ্রহণের পদ্ধতি? লোন গ্রহণের জন্য জন্য আপনাকে কিছু করতে হবে না বিকাশ ও সিটি ব্যাংক সিদ্ধান্ত নিবে আপনার বিকাশ একাউন্ট লোন পাওয়া যোগ্য কিনা

  1. প্রথমে বিকাশ অ্যাপে পিন দিয়ে প্রবেশ করবেন। লোন মেন্যুতে ক্লিক করবেন। লোনের জন্য প্রযোজ্য না হলে ফাঁকা দেখাবে। প্রযোজ্য হলে “আপনি লোন নিতে পারেন সর্বোচ্চ ১০,০০০ বা ৫০০০ লেখা আসবে”।
  2. লোন নিতে সম্মতি দিন ক্লিক করুন।
  3. টার্মস এন্ড কন্ডিশন অনুযায়ী ১০০০০ টাকা এবং লোন পরিশোধের সময়সীমা ৩ মাস নিচে এগিয়ে যান ক্লিক করুন।
  4. ব্যবহারযোগ্য লোন লিমিট দেখাবে। শর্তাবলী মেনে আপনি লোন নিন এ ক্লিক করুন।
  5. “আপনার লোন সফল হয়েছে” দেখাবে।
  6. হোমে ফিরে যাই ক্লিক করে ব্যালেন্স চেক করুন। ব্যাস কাজ শেষ।
  7. যে মাসে লোন নিবেন তার বিশ দিন পরই প্রথম কিস্তির তারিখ দেখাবে। আপনি চাইলে একই সাথে বা এক কিস্তিতে লোন প্রথম মাসেই ফেরত দিতে পারবেন।

বিকাশ লোনের কিস্তি যদি না দেই?

হ্যাঁ। অটোমেটিক কিস্তির টাকা কেটে নেয়া হবে। লোন পরিশোধের জন্য আপনার বিকাশ একাউন্ট থেকে পরিশোধের নির্দিষ্ট তারিখে অটোমেটিক কিস্তির টাকা কেটে নেয়া হবে৷ দেরিতে কিস্তি পরিশোধ করায় জরিমানা কোনো কারণে কিস্তি পরিশোধ করতে দেরি হলে বা ব্যৰ্থ হলে, 2% per annum হারে জরিমানা প্রযোজ্য হবে। জরিমানা এড়াতে নির্ধারিত পরিশোধের তারিখে আপনার বিকাশ একাউন্টে পর্যাপ্ত ব্যালেন্স রাখুন। একাউন্ট বন্ধের আগে সম্পূর্ণ লোন পরিশোধ করতে হবে। আপনি যদি বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করতে চান, তাহলে অবশ্যই এর আগে সম্পূর্ণ লোন পরিশোধ করুন।

ঋণ গ্রহীতা যদি মারা যায়? যদি কোন ঋণ গ্রহিতার মনোনীত ব্যক্তি (নমিনি) ঋণ গ্রহিতার মৃত্যুর তথ্য প্রয়োজনীয় প্রমাণসহ সরবরাহ করে তবে মনোনীত ব্যক্তির দাবি যাচাই সাপেক্ষে ঋণ গ্রহিতার মৃত্যুর তারিখ হতে বকেয়া ঋণের উপর সুদ গণনা বন্ধ করা হবে। ঋণ গ্রহিতার বিকাশ অ্যাকাউন্ট থেকে বকেয়া ঋণ (সুদ, জরিমানা ও অন্যান্য ফি বা চার্জ সহ) সমন্বয় করে, প্রযোজ্য ক্ষেত্রে, নমিনির আর্থিক দাবী পরিশোধ করা হবে। তবে মনোনীত ব্যক্তির দাবি যাচাই সাপেক্ষে ঋণ গ্রহিতার মৃত্যুর তারিখ হতে বকেয়া ঋণের উপর সুদ গণনা বন্ধ করা হবে। ঋণ গ্রহিতার বিকাশ অ্যাকাউন্ট থেকে বকেয়া ঋণ (সুদ, জরিমানা ও অন্যান্য ফি বা চার্জ সহ) সমন্বয় করে, প্রযোজ্য ক্ষেত্রে, নমিনির আর্থিক দাবী পরিশোধ করা হবে। এই শর্তাবলীতে সম্মতি প্রদান করে ঋণ গ্রহিতা সিটি ব্যাংক লিমিটেড- এর সাথে চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন এবং সম্পূর্ণ ঋণ পরিশোধ না হওয়া পর্যন্ত এই চুক্তিটি বলবত থাকবে। কল সেন্টার সার্ভিস ১৬২৪৭ সহ বিকাশের নিয়মিত যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করে ঋণ গ্রহিতা ঋণের বিষয়ে যে কোন কিছু জানতে এবং অভিযোগ জানাতে পারবেন। সিটি ব্যাংক যে কোন সময় ঋণ গ্রহিতা বরাবর বিতরণকৃত/ অনুমোদিত ঋণ সুবিধা পূনর্বিবেচনা করার অধিকার সংরক্ষণ করে।

বি:দ্র: বিকাশ সিটিব্যাংক ঋণ গ্রহণের ক্ষেত্রে নির্ধারিত কোন ফরম নাই এবং আপনি অনলাইনে এজন্য আবেদন ফরমও পূরণ করতে পারবেন না। আপনার লেনদেন এবং বিকাশ তথ্যাদি যাচাই করে বিকাশ এবং সিটি ব্যাংক বিকাশ লোনের সিদ্ধান্ত নিবে তাই KYC আপডেট রাখুন, ছবি আপডেট রাখুন এবং ফ্রড লেনদেন থেকে দূরে থাকুন।

বিকাশে ১০ হাজার টাকা ঋণ পাওয়ার নিয়ম । বিকাশ লোন কারা পাবে?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *