জমি বা ফ্ল্যাটের মালিকানা বা খতিয়ান বা পর্চায় করনিক ভুল বা ইচ্ছাকৃত ভুল সংশোধনের জন্য মিসকেস বা বিবিধ মামলা দায়ের করতে হয় – নামজারির আবেদন নামঞ্জুর হলে করণীয় দেখে নিন

মিছ (বিবিধ) মামলা কি? – কোন কারণে কোন সংক্ষুব্ধ ব্যক্তি কোন মিউটেশান বাতিল বা সংশোধন চেয়ে সহকারী কমিশনার (ভূমি) এর নিকট জমিদারী অধিগ্রহন ও প্রজাস্বত্ব আইন-১৯৫০ এর ১৫০ ধারার অধীনে রিভিউ আবেদন করতে পারেন। এ ধরনের আবেদন প্রাপ্তির পর সহকারী কমিশনার (ভূমি) একটি মিসকেস চালু করে বিষয়টি সম্পর্কে সরেজমিনে তদন্ত প্রতিবেদন গ্রহন করবেন। পরবর্তীতে উভয় পক্ষের উপস্থিতিতে শুনানী গ্রহণ করে যথাযথ আদেশ প্রদান করবেন।

সহকারী কমিশনার(ভূমি) এর আদেশে সংক্ষুব্ধ পক্ষ অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক(রাজস্ব) আদালতে আপীল দায়ের করতে পারেন। তবে রিভিউ এর আবেদন প্রত্যাখ্যান করে বা পূর্ববর্তী আদেশ/মিউটেশান বহাল রেখে আদেশ দেওয়া হলে উক্ত রিভিউ আদেশের বিরুদ্ধে আপীল করা যাবে না। সেক্ষেত্রে সংক্ষুব্ধ পক্ষ সরাসরি মূল মিউটেশানের বিরুদ্ধে আপীল দায়ের করতে পারেন।

বিএস খতিয়ানে কোনরূপ করণিক ভুল থাকলে বিবিধ মামলা দায়েরের মাধ্যমে করণিক ভুল সংশোধন করা যায়। কোন ব্যক্তি কোন জমির মালিকানা লাভ করলে প্রার্থিত জমিতে পূর্বে অপর কোন ব্যক্তি নামজারি করিয়ে থাকলে এবং এই কারণে জমির স্বল্পতা পরিলক্ষিত হলে প্রথমে উক্ত নামজারি খতিয়ান বাতিল বা সংশোধন এবং তারপর নিজ নামে নামজারিকরণের উদ্দেশ্যে প্রথমে বিবিধ মামলা দায়ের করতে হয়।

কেন মিসকেস মামলা করা হয় এবং কিভাবে তা নিষ্পত্তি হয় সেটি জানা জরুরি / মিছকেসের মালা নিজে লিখিত আবেদনের মাধ্যমে দায়ের করতে হয়।

মিছ্ একটি বিবিধ মামলা হতে পারে এবং এটি বিভিন্ন ধরণের মামলার মধ্যে থাকতে পারে। এই মামলাগুলো বিভিন্ন কারণে হতে পারে, যেমন আপত্তিজনক আচরণ, আইনের লঙ্ঘন, অসম্মতি, ব্যক্তিগত ঝগড়া ইত্যাদি। এই মামলাগুলো আধুনিক বিচারপতি ও আইনগত বিষয়বস্তুগুলির মধ্যে অন্তর্ভুক্ত হতে পারে। এগুলো মূলত ব্যক্তিগত মামলার মতো দেখতে হয়, কিন্তু কোনও ব্যক্তির সম্পর্কে না হলেও এই মামলাগুলি দায়ের করা যেতে পারে। মিছ্ মামলা অনেক সময় বিভিন্ন ধরণের আইনগুলি ব্যবহৃত হয়, যেমন জব্দকরণ আইন, জমা আইন, আইনশৃঙ্খলা, আইনসমূহ, দণ্ড আইন ইত্যাদি। এই মামলাগুলি ন্যায্যতা বিচারের সামনে উঠানো হয় এবং তার উপর আধারিত নির্ণয় গ্রহণ করা হয়।

মিসকেস অনলাইন আবেদন ফরম ২০২৩

মিসকেস অনলাইন আবেদন ফরম ২০২৩ Click Here

মিউটেশন বা খারিজের আবেদন নামঞ্জুর ২০২৩ । নামজারি আবেদন নামঞ্জুর বা বতিল করা হলে করণীয় কি দেখে নিন

  1. কোন কারণে কোন নামজারি আবেদন বাতিল করা হলে, সংক্ষুব্ধ ব্যক্তি সহকারী কমিশনার(ভূমি) এর নিকট জমিদারী অধিগ্রহণ ও প্রজাস্বত্ব আইন-১৯৫০ এর ১৫০ ধারার অধীনে তার মিউটেশান আবেদন রিভিউ চেয়ে আবেদন করতে পারেন।
  2. রিভিউ আবেদন করা হলে তার পূর্বের ন্যায় মিসকেস চালু করে, আবেদনকারীর বক্তব্য গ্রহণ, কাগজপত্র নতুন করে পর্যালোচনা, প্রয়োজনে নতুন কাগজপত্র বিম্লেষণ করে সহকারী কমিশনার(ভূমি) আদেশ প্রদান করবেন।
  3. আবার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) বরাবরে উক্ত মিউটেশান আবেদন বাতিলের বিরুদ্ধে সরাসরি আপীল দায়ের করতে পারবেন।

মিছ বা মিসকেস বা বিবিধ মামলা দায়েরের পদ্ধতি কি?

একটি সাদা কাগজে আপনার জমির এলাকার নিকটস্থ সহকারী কমিশনার (ভূমি) বরাবর কি ধরণের প্রতিকার পেতে আগ্রহী তা বিস্তারিতভাবে লিখতে হবে। এছাড়া বিবাদীর নাম, বিবাদীর নামে কোন খতিয়ান সৃজিত হয়ে থাকলে তার বিবরণ এবং নিজের স্বত্ব কিভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তার বিবরণ থাকতে হবে। নামজারি আবেদনের মতো ২০/- (বিশ) টাকা কোর্ট ফি আবেদনের সাথে সংযুক্ত করতে হবে। আবেদনে উল্লিখিত যুক্তির স্বপক্ষে সংশ্লিষ্ট কাগজপত্র সংযুক্ত করতে হবে।

One thought on “মিসকেস কী? নামজারির আবেদন নামঞ্জুর হলে করণীয় দেখে নিন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *