হিন্দু আইনের কোন বিধি বা প্রথায় ভিন্নরূপ কোন কিছু থাকা সত্ত্বেও, উইল সম্পাদন ব্যতীত কোন হিন্দু ব্যক্তি বিধবা স্ত্রী রাখিয়া মৃত্যুবরণ করিলে, ধারা ৩ এর বিধান প্রযোজ্য হইবে– হিন্দু আইনে নারীর সম্পত্তি অধিকার

সকল স্ত্রী একজন পুত্রের সমান পাইবে?– হিন্দু আইনের দায়ভাগ মতবাদের অনুসারী কোন হিন্দু ব্যক্তি উইল সম্পাদন ব্যতীত কোন প্রকার সম্পত্তি রাখিয়া মৃত্যুবরণ করিলে এবং হিন্দু আইনের অন্যান্য মতবাদের বা প্রথা আইনের অনুসারী কোন হিন্দু ব্যক্তি স্বতন্ত্র সম্পত্তি রাখিয়া উইল সম্পাদন ব্যতীত মৃত্যুবরণ করিলে, তাহার বিধবা স্ত্রী, বা একাধিক বিধবা স্ত্রী থাকিলে সকল বিধবা স্ত্রী একত্রে তিনি উইল সম্পাদন ব্যতীত যে সম্পত্তি রাখিয়া মৃত্যুবরণ করিয়াছেন সেই সম্পত্তিতে, উপ-ধারা (৩) এর বিধান সাপেক্ষে, একজন পুত্রের অনুরূপ অংশের অধিকারী হইবেন।

তবে শর্ত থাকে যে, কোন মৃত পুত্রের কোন পুত্র জীবিত না থাকিলে, উক্ত মৃত পুত্রের বিধবা স্ত্রীও একজন পুত্রের অনুরূপ সম্পত্তির উত্তরাধিকারী হইবেন, এবং উক্ত মৃত পুত্রের পুত্র বা পুত্রের পুত্র জীবিত থাকিলে উক্ত পুত্রের পুত্রের অনুরূপ সম্পত্তিতে উত্তরাধিকারী হইবেন। আরও শর্ত থাকে যে, কোন মৃত পুত্রের মৃত পুত্রের বিধবা স্ত্রীর ক্ষেত্রেও, প্রয়োজনীয় পরিবর্তন সহকারে, একই বিধান প্রযোজ্য হইবে।

দায়ভাগ মতবাদ ব্যতীত হিন্দু আইনের অন্য কোন মতবাদের অনুসারী বা কোন প্রথা আইনের অনুসারী কোন হিন্দু ব্যক্তি যৌথ পরিবারে কোন স্বত্ব রাখিয়া মৃত্যুবরণ করিলে, সম্পত্তিতে তাহার নিজের যে স্বত্ব ছিল তাহার বিধবা স্ত্রীরও, উপ-ধারা (৩) এর বিধান সাপেক্ষে, সেই একই স্বত্ব থাকিবে।

পুন:বিবাহ করলেই সম্পত্তি চলে যাবে? ‘হিন্দু শাস্ত্রে বিবাহ বিচ্ছেদ এবং নারীর পুনঃবিবাহের সুস্পষ্ট বিধান থাকলেও বিদ্যমান হিন্দু আইনে বিবাহ বিচ্ছেদের কারও কোনো অধিকার নেই। তবে স্ত্রীর বর্তমানে স্বামী যতগুলো ইচ্ছে বিয়ে করতে পারে। নারী বিবাহ বিচ্ছেদও চাইতে পারবে না, দ্বিতীয়বার বিয়েও করতে পারবে না। সমাজে বিবাহ বিচ্ছেদের প্রয়োজন এবং চাহিদা আছে কিন্তু আইন নেই।’

কোন ব্যক্তি তাহার সকল সম্পত্তির ক্ষেত্রে বলবৎযোগ্য কোন উইল সম্পাদন না করিয়া মৃত্যুবরণ করিলে, এই আইনের উদ্দেশ্য পূরণকল্পে, তিনি উইল সম্পাদন ব্যতীত মৃত্যুবরণ করিয়াছেন মর্মে গণ্য হইবে।

প্রবর্তনের পূর্বে উইল সম্পাদন ব্যতীত মৃত্যুবরণকারী কোন হিন্দু ব্যক্তির সম্পত্তির ক্ষেত্রে, এই আইনের কোন কিছুই প্রযোজ্য হইবে না।

হিন্দু আইনে নারীর সম্পত্তি অধিকার । কখন নারীকে সম্পত্তি হতে বঞ্চিত করা হয়?

সম্পত্তিতে হিন্দু মহিলার অধিকার আইন ১৯৩৭

হিন্দু সম্পত্তি বন্টন আইন । দায়ভাগ উত্তরাধিকারের কিছু সাধারণ নিয়ম দেখুন

  1. দায়ভাগ আইনে পিতার মৃত্যুর পর পুত্রগণ পিতার সম্পত্তিতে উত্তরাধিকার লাভ করে।
  2. পিতার মৃত্যুর পর পুত্রগণ যৌথ পরিবার গঠন করতে পারে। যৌথ পরিবারের কর্তা প্রয়োজনে সম্পত্তির কিছু অংশ ক্রয়, বিক্রয় , বন্ধক বা অন্যভাবে হস্তান্তর করতে পারেন।
  3. কোন হিন্দু মালিক যখন মারা যান, ঠিক সেই মুহূর্ত থেকে উত্তরাধিকার শুরু হয়। ভবিষ্যতে কোন উত্তরাধিকারী জন্মগ্রহণ করতে পারে বলে উত্তরাধিকার স্থগিত রাখা যাবেনা।
  4. স্ত্রীধন বলতে নারীর ব্যক্তিগত সম্পত্তি বোঝায়। এর উপর নারীর চূড়ান্ত অধিকার ও কর্তৃত্ব রয়েছে।
  5. মৃত ব্যক্তির স্ত্রী ও পুত্র থাকলে স্ত্রী পুত্রের ১ অংশের সমান অংশ পাবে।
  6. একাধিক কন্যা থাকলে কুমারী কন্যা পাবে, বিবাহিত নিঃসন্তান কন্যা পাবেনা। কন্যার গর্ভজাত পুত্রসন্তান উত্তরাধিকারী হবে।
  7. স্বামীর মৃত্যুর পর স্ত্রী জীবন সত্ত্ব ভোগ করেন। তার মৃত্যুর পর সেই সম্পত্তি পুত্রদের মধ্যে ভাগ হয়।
  8. বণ্টনের সময় কোন অংশীদার মারা গেলে তার উত্তরাধিকারীগণ ওয়ারিশ হবে।
  9. কোন পুত্র দত্তক নিলে সে স্বাভাবিক পুত্রের ১/৩ অংশের মালিক হয়।
  10. কন্যার পুত্র অর্থাৎ দৌহিত্ররা মাথাপিছু হারে সম্পত্তি পাবে।

পুরুষ মালিকের সমান সম্পত্তি পাবে কি?

কোন সম্পত্তিতে হিন্দু বিধবার স্বত্ব সৃষ্টি হইলে, তাহা হিন্দু মহিলার সম্পত্তি নামে একটি সীমিত স্বত্ব হইবে, তবে শর্ত থাকে যে, তাহারও একজন পুরুষ মালিকের অনুরূপ সম্পত্তি বন্টনের দাবী করিবার অধিকার থাকিবে। প্রথা বা উত্তরাধিকারের অন্যান্য বিধান বা উক্ত সম্পত্তিতে প্রযোজ্য দানের শর্তাবলী অনুসারে যে সম্পত্তিতে কেবল একজনই উত্তরাধিকারী হইবে বা উত্তরাধিকার আইন, ১৯২৫ (১৯২৫ সনের ৩৯ নং আইন) প্রযোজ্য হইবে, সেই সম্পত্তির ক্ষেত্রে এই ধারার বিধানসমূহ প্রযোজ্য হইবে না ।

সম্পত্তিতে হিন্দু মহিলার অধিকার আইন । হিন্দু বিধবা নারীর সম্পত্তিতে অধিকার সমূহ জেনে নিন

হিন্দু উত্তরাধিকার আইন ও সম্পত্তির অংশ ভাগাভাগির বিধি বিধান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *