করযোগ্য আয় নেই কিন্তু সামান্য প্রয়োজনে যদি কেউ টিআইএন খুলে থাকে এবং জিরো রিটার্ণ দাখিল করে থাকে তবে তাকেও ন্যূনতম ২০০০ টাকা কর পরিশোধ করতে হবে – TIN Certificate Cancelation Rules

টিন বাতিল করতে কেন সবাই মরিয়া?– নতুন বাজেট ২০২৩-২০২৪, যে সকল করদাতার রিটার্ন দাখিলের আইনি বাধ্যবাধকতা রয়েছে তাদের আয়কর করমুক্ত সীমার মধ্যে থাকলেও নুন্যতম ২০০০ টাকা কর ধার্য করার প্রস্তাব করা হয়। এছাড়া যারা ইতোমধ্যে জিরো রিটার্ণও দাখিল করেছেন তাদের প্রতিবছর রিটার্ণ দাখিল করে যেতে হবে। জিরো রিটার্ণ বা শুন্য রিটার্ণ দাখিল করলেও  ২০২৪ সালের জুলাই থেকে ২০০০ টাকা কর পরিশোধ করতে হবে। ফলে অপ্রয়োজনে বা ভুলবশত কেউ টিআইএন খুললেও এখন তা বাতিল করতে চাচ্ছেন।

টিন সার্টিফিকেট বাতিলের বিষয়ে আয়কর আইন কি বলে? আয়কর অধ্যাদেশ ১৯৮৪ এর 75(1b) তে বলা হয়েছে, যদি কোন আয়বছরে বা তার পূর্বের বছরসহ পরপর ৩ বছরের মধ্যে ব্যক্তির করযোগ্য আয় থাকে, তবে তাকে কর রিটার্ন জমা দিতে হবে। 75. Return of income.- (1) Save as provided in section 76, every person shall file or cause to be filed, with the Deputy Commissioner of Taxes, a return of his income or the income of any other person in respect of which he is assessable to tax under this Ordinance,- (a) if his total income during the income year exceeded the maximum amount which is not chargeable to tax under this Ordinance, or (b) if he was assessed to tax for any one of the ‘[three years] immediately preceding that income year.

এখনই কি টিন বাতিল করবো? আপনার দৈনন্দিক অনেক কাজেই এ টিন সার্টিফিকেট কাজে লাগতে পারে। আপনি যদি একজন বাংলাদেশের সচেতন নাগরিক হয়ে থাকেন তাহলে আপনাকে অবশ্যই e-tin সার্টিফিকেট করে নিতে হবে। আপনি যদি বাংলাদেশ সরকারের বিভিন্ন সেবা গ্রহণ করতে চান তাহলে অবশ্যই এই সার্টিফিকেট অত্যন্ত জরুরী। তাই হুট করে টিআইএন বাতিল করবেন না। প্রত্যেকটি জিনিসের যেমন সুবিধা রয়েছে ঠিক তেমনি অসুবিধাও রয়েছে। আপনার যদি একটি নিবন্ধনকৃত টিন সার্টিফিকেট থেকে থাকে তাহলে আপনি প্রতিবছর ট্যাক্স দিতে বাধ্য। এবং আপনি যদি পরপর তিন বছর কোন ট্যাক্স প্রদান না করে থাকেন তাহলে আপনি অসুবিধায় পড়তে পারেন। আপনি যদি টিন সার্টিফিকেট করে থাকেন তবে আপনাকে অবশ্যই ট্যাক্স রিটার্ণ দাখিল করতে হবে।

টিন সার্টিফিকেট বাতিল করার নিয়ম । অনলাইনে টিন সার্টিফিকেট বাতিল করা যায় কি? না। অনলাইনে বাতিলের আবেদন করা যায় না।

দেশে ৩২ লাখ ব্যক্তি আয়কর রিটার্ন জমা দেন, তাদের মধ্যে প্রায় ৮ লাখের করযোগ্য আয় নেই। এই ৮ লাখ ব্যক্তির ওপর ন্যূনতম কর ধার্য করা হলে সরকারের বাড়তি ১৬০ কোটি টাকা রাজস্ব আয় হবে। এক্ষেত্রে যেহেতু আপনার আয় নেই আপনি শুন্য রিটার্ন জমা দিবেন। তারপর থেকে অর্থাৎ ৪র্থ বছর আপনাকে আর আয়কর রিটার্ণ জমা দিতে হবে না। সেইক্ষেত্রে আপনি চাইলে ৪র্থ বছরের পর আপনার ট্যাক্স সার্কেল উপ-কর কমিশনারের নিকট TIN Certificate বাতিলের জন্য আবেদন করতে পারবেন।

Cancelation of TIN Certificate

নতুন কর আইন ২০২৩ (খসড়া) অনুসারে টিন সার্টিফিকেট থাকলেই আয়কর রিটার্ন ও নুন্যতম কর ২০০০ টাকা জমা দিতে হবে। না দিলে জরিমানা ও শাস্তির আওতায় আনা হবে।

টিআইএন বাতিল করার নিয়ম । যে শর্তে টিন সার্টিফিকেট বাতিল করা যায়?

  • যদিও টিন সার্টিফিকেট বাতিল সাধারণত হয় না। ক্ষেত্রবিশেষে এটি বাতিল করা গেলেও কিছু শর্ত রয়েছে। এছাড়া সরকার খুব শিঘ্রই টিআইএন বাতিলের আরও কিছু নির্দেশনা জারি করবে।
  • করদাতা মারা গেলে এবং টিন চালু রাখার মত কোন কার্যক্রম না থাকলে এক্ষেত্রে তার ওয়ারিশ কর্তৃক আবেদন করতে হবে এবং এক্ষেত্রে টিন রেজিস্ট্রেশন স্থায়ীভাবে বন্ধ করা হবে।
  • নন রেসিডেন্ট বিদেশী নাগরিক যার বাংলাদেশে কোন স্থায়ী ভিত্তি নেই।
  • বিশেষ কোন কারণে TIN Certificate গ্রহণ করলেও বর্তমানে ও ভবিষ্যতে করদাতার আয় শুন্য হলে বা করযোগ্য কোন আয় না থাকলে বাতিল করা যাবে।
  • তবে বেশির ভাগ ক্ষেত্রে টিআইএন নথিজাত বা সাময়িকভাবে বন্ধ রাখা হয়। প্রয়োজনে পুনরায় চালু করা যায়।

টিআইএন বাতিলের জন্য কার বরাবর আবেদন করবেন?

একটানা ০৩ বছর রিটার্ণ দাখিল করার পর ৪র্থ বছর সার্কেল কর কমিশনার বা উপ-কর কমিশনার বরাবর আবেদন করতে হবে। আপনার টিআইএন সার্টিফিকেটে ট্যাক্স জোন কত তা দেখে গুগল করুন। যেমন “Taxes Circle-018, Taxes Zone 01, Dhaka” থাকলে তা লিখে গুগল করলে প্রথম যে লিংক আসে সেখানে ক্লিক করুন। ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে “মোঃ ইকবাল হোসেন, কর কমিশনার, কর অঞ্চল-১, ঢাকা” ছবিসহ এমন লেখা দেখতে পাবেন। সেখান থেকে কর কমিশনার, কর অঞ্চল-১, ঢাকা বরাবর আবেদনপত্র লিখবেন এবং প্রয়োজনীয় সংযোজনী বা প্রমানক যুক্ত করে ডাকযোগে বা সরাসরি আবেদন প্রেরণ করবেন।

আবেদনের সাথে কি কি যুক্ত করতে হবে? টিন সার্টিফিকেট বাতিল করার জন্য প্রথমে আপনাকে পর পর ৩ বছর শুন্য আয়কর রিটার্ন দাখিল করতে হবে। এরপর আপনার Taxes Circle এর উপ-কর কমিশনার বরাবর উপযুক্ত কারণসহ টিন সার্টিফিকেট বাতিল করার দরখাস্ত করতে হবে। আবেদনের সাথে পূর্বের দাখিল করা রিটার্নের রিসিট, টিন সার্টিফিকেট ও এনআইডি কার্ডের কপি জমা দিন। কর কমিশনার বা উপ-কর কমিশনার আবেদন যথোপযুক্ত মনে করলে টিন সার্টিফিকেট বাতিল করবেন।

করদাতা মারা গেলে বিধান কি? টিন সার্টিফিকেট ধারী কোন করদাতা মারা গেলে এবং ভবিষ্যতে উক্ত টিন সার্টিফিকেট কোন প্রতিষ্ঠান বা ব্যবসায়িক কার্যক্রমে ব্যবহার না করা হলে, টিন রেজিস্ট্রেশন বাতিল করা যাবে। আর যদি করদার প্রতিষ্ঠিত কোন ব্যবসা বা প্রতিষ্ঠানের জন্য টিন সনদ ব্যবহার করা হয়, সেক্ষেত্রে তার ওয়ারিশ/প্রতিনিধি/ দ্বায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তি প্রতিবছর আয়কর রিটার্ণ দাখিল ও আয়কর (যদি প্রযোজ্য) পরিশোধ করবেন। Income Tax Ordinance 1984 Section 75 (2b)  মোতাবেক মৃত ব্যক্তির টিআইএন এর কোন প্রয়োজনীয়তা না থাকলে, উত্তরাধিকারীরা উপকর কমিশনার বরাবর টিআইএন বাতিলের জন্য আবেদন করবেন। উপকর কমিশনার Inspection বা Hearing এর মাধ্যমে অথবা আবেদনের উপর ভিত্তি করে আপনার টিআইএন এর কার্যক্রম স্থগিত বা বাতিল করতে পারেন। করদাতা মারা গেলে, টিন সার্টিফিকেট বাতিল করার জন্য যা যা প্রয়োজন হবে, ওয়ারিশ কর্তৃক লিখিত আবেদন, টিন সার্টিফিকেটের কপি, পূববর্তী আয়কর রিটার্নের রিসিট/প্রত্যয়ন কপি, করদাতার মৃত্যু সনদের কপি, করদাতার জাতীয় পরিচয় পত্রের কপি।

করযোগ্য আয় না থাকলে বিধান কি? করযোগ্য আয় না থাকলেও প্রতিবছর আয়কর রিটার্ণ জমা দেয়া অনেকের জন্য একটি ঝামেলাপূর্ণ কাজ। তাই আমরা অনেকেই চাই টিন সার্টিফিকেট বন্ধ করতে। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে এটি বন্ধ করার প্রয়োজন নেই। করযোগ্য আয় না থাকলে টিন সার্টিফিকেট বাতিল করার জন্য অবশ্যই আপনাকে পরপর ধারাবাহিকভাবে ৩ বছর শুন্য রিটার্ন দাখিল করতে হবে। তারপর আপনি আপনার TIN Certificate এ উল্লেখিত Taxes Circle এর উপ-কর কমিশনার বরাবর লিখিত আবেদন করতে হবে। করযোগ্য আয় না থাকলে, টিন সার্টিফিকেট বাতিল করার জন্য প্রয়োজন হবে, লিখিত আবেদন, টিন সার্টিফিকেটের কপি, পূববর্তী আয়কর রিটার্নের রিসিট/প্রত্যয়ন কপি, করদাতার জাতীয় পরিচয় পত্রের কপি।

টিন সার্টিফিকেট বাতিল করার দরখাস্ত কিভাবে লিখতে হয় নমুনা হবে কি?

টিআইএন সার্টিফিকেট বাতিল করার জন্য দরখাস্ত করতে হবে আপনার কর সার্কেলের উপ-কর কমিশনার বরাবর। TIN বাতিলের উপযুক্ত কারণ ব্যাখ্যা করে এবং প্রয়োজনীয় কাগজপত্র যেমন টিন সার্টিফিকেট ও এনআইডি কার্ডের কপি সংযুক্ত করে দরখাস্ত জমা দিতে হবে। টিন বাতিলের আবেদন নমুনা ডাউনলোড করুন

TIN Certificate Cancel Process । টিন সার্টিফিকেট বাতিল করার নিয়ম দেখুন

7 thoughts on “TIN Certificate Cancelation Rules । টিন সার্টিফিকেট বাতিল করার দরখাস্ত কিভাবে লিখবেন?

  • 06/06/2023 at 9:25 am
    Permalink

    আমার ইটিআইএন সার্টিফিকেট প্রিন্ট করা প্রয়োজন কিন্তু আমি আইডি ও পাসওয়ার্ড হারিয়ে ফেলায় লগইন করতে পারছি না।
    কিভাবে পুনরুদ্ধার করতে পারি?
    কারো জানা থাকলে অনুগ্রহ করে সাহায্য করুন।

    Reply
    • 07/06/2023 at 7:08 am
      Permalink

      website এ forget password নামে অপশন আছে যেখান থেকে ইউজার আইডি ও পাসওয়ার্ড রিট্রাইভ করতে পারবেন।

      Reply
  • 06/06/2023 at 11:50 am
    Permalink

    আমি টি আই এন সার্টিফিকেট খুলেছিলাম সামন্য কাজের জন্য আমার অর্থের কোন পথ নেই তাই আমি সেটা বাতিল করতে চাচ্ছি।

    Reply
    • 07/06/2023 at 7:07 am
      Permalink

      ০৩ বার জিরো রিটার্ণ দাখিল করার পর বাতিল করা যাবে।

      Reply
  • 13/06/2023 at 11:47 am
    Permalink

    আমার কোম্পানির (সোল প্রোপাইটর) ওনারের ভুলবশত টিন ২টা। প্রথমটা পাসপোর্ট দিয়ে ইস্যু করা এবং সেটা দিয়ে সমস্ত কাজ করা হয় এখন পর্যন্ত। গতবছর মে মাসে ভুলবশত আরেকটা টিন ইস্যু করেন এনআইডি দিয়ে। এখন এটা বাতিল করতে হলে কি করনীয়?

    Reply
    • 13/06/2023 at 8:56 pm
      Permalink

      কর অঞ্চলে যোগাযোগ করতে হবে।

      Reply
  • Pingback: টিন সার্টিফিকেট ডাউনলোড । টিন সার্টিফিকেট খোলার নিয়ম দেখুন - Reportbd

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *