২০২২-২৩ শিক্ষাবর্ষে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তিকৃত শিক্ষার্থীদের অনলাইন টিসি, বিটিসি, বিষয়/গ্রুপ/ শিফট/ ভার্সন/ ছবি পরিবর্তন এবং ভর্তি বাতিল কার্যক্রমের সময় বৃদ্ধি করা হয়েছে- একাদশ শ্রেণিতে ভর্তিকৃত শিক্ষার্থীদের অনলাইন টিসি

একাদশ শ্রেণীতে বিষয় পরিবর্তন ফি কত টাকা? – ঢাকা শিক্ষা বোর্ড জানিয়েছে, প্রতি বিষয় পরিবর্তনে ২০০ টাকা, বিভাগ বা গ্রুপ পরিবর্তনে ৮০০ টাকা, অনলাইন টিসি বা বিটিসিতে ৭০০ টাকা, ভর্তি বাতিলে ৬০০ টাকা ফি নির্ধারণ করা হয়েছে। তবে শিফট, ভার্সন, ছবি পরিবর্তন ও চতুর্থ বিষয় বাতিলে শিক্ষার্থীদের কোনো ফি দিতে হবে না।

একাদশ শ্রেণীতে ভর্তি বাতিল কার্যক্রম কত তারিখ পর্যন্ত চলবে?  শিক্ষার্থী, অভিভাবক এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধানগণের আবেদনের প্রেক্ষিতে ২০২২-২৩ শিক্ষাবর্ষে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তিকৃত শিক্ষার্থীদের অনলাইন টিসি (eTC), বোর্ড পরিবর্তনের মাধ্যমে ছাড়পত্র (BTC), বিষয়/ গ্রুপ/ শিফট/ ভার্সন/ ছবি পরিবর্তন এবং ভর্তি বাতিল কার্যক্রম আগামী ১০/০৮/২০২৩ তারিখ হতে ৩১/০৮/২০২৩ তারিখ পর্যন্ত চলবে । স্কুলের অনলাইন টিসি ২০২৩ । দ্বাদশ শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের ছাড়পত্র ও ভর্তি বাতিল সময়সীমা বৃদ্ধি

শিক্ষার্থী কতৃক টিসি(TC)ফরম সঠিক ভাবে পূরণ করে “Submit your application” বাটনে ক্লিক করবে এবং সোনালী সেবার স্লিপ প্রিন্ট নিবে। টিসির আবেদনটি সাবমিট করার পর প্রথমে নিজ প্রতিষ্ঠান দেখতে পাবে এবং অনুমোদন করবে। এরপর ভর্তিচ্ছু প্রতিষ্ঠান আবেদনটি দেখতে পাবে এবং অনুমোদন করলে শিক্ষার্থী বোর্ডের ফি জমা দেবার জন্য একটি SMS পাবে। অতঃপর বোর্ড কতৃক আবেদন চূড়ান্ত অনুমোদনের পর শিক্ষার্থী আর একটি SMS পাবে। তখন সে বোর্ডের ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে e-TC থেকে টিসির আদেশ প্রিন্ট নিয়ে নতুন প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হবে। আবেদনটি কোথায় কি অবস্থায় আছে ও সোনালী সেবার স্লিপ প্রিন্ট করতে Transfer certificate status বাটন ক্লিক করে রোল, রেজিস্ট্রেশন এবং সিকিউরিটি কোড দিয়ে লগইন করলে দেখা যাবে।

অনলাইনেই টিসির জন্য আবেদন করা যায় / অনলাইন কার্যক্রমের জন্য শিক্ষার্থীদের বোর্ডে যোগাযোগের কোন প্রয়োজন নেই ।

এছাড়াও অন্যান্য কারণও হতে পারে, যেমন প্রতিষ্ঠানের বাণিজ্যিক কারণে স্কুলের বন্ধ হয়ে যাওয়া, ছাত্র পরীক্ষার ফলাফলে অনিশ্চয়তা থাকা ইত্যাদি।

Caption: TC Time Extended by Dhaka Education Board

Online Transfer certificate from । অনলাইন টিসি প্রাপ্তির নিয়মাবলী 

  1. শিক্ষার্থী কতৃক টিসি(TC)ফরম সঠিক ভাবে পূরণ করে “Submit your application” বাটনে ক্লিক করবে এবং
  2. সোনালী সেবার স্লিপ প্রিন্ট নিবে।
  3. টিসির আবেদনটি সাবমিট করার পর প্রথমে নিজ প্রতিষ্ঠান দেখতে পাবে এবং অনুমোদন করবে।
  4. এরপর ভর্তিচ্ছু প্রতিষ্ঠান আবেদনটি দেখতে পাবে এবং অনুমোদন করলে শিক্ষার্থী বোর্ডের ফি জমা দেবার জন্য একটি SMS পাবে।
  5. অতঃপর বোর্ড কতৃক আবেদন চূড়ান্ত অনুমোদনের পর শিক্ষার্থী আর একটি SMS পাবে।
  6. তখন সে বোর্ডের ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে e-TC থেকে টিসির আদেশ প্রিন্ট নিয়ে নতুন প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হবে।
  7. আবেদনটি কোথায় কি অবস্থায় আছে ও সোনালী সেবার স্লিপ প্রিন্ট করতে Transfer certificate status বাটন ক্লিক করে রোল, রেজিস্ট্রেশন এবং সিকিউরিটি কোড দিয়ে লগইন করলে দেখা যাবে।

কি কি কারণে টিসি পাওয়া যায়?

পিতা/মাতার বদলি অথবা বাসস্থান পরিবর্তন অথবা যাতায়াত সমস্যা অথবা  আর্থিক অস্বচ্ছলতার কারণে ট্রান্সফার সার্টিফিকেট বা টিসি পাওয়া যায়। এ সব ক্ষেত্রে চাইলে ভর্তি বার্তিলও করা যায়। মোট কথা অভিভাবকের নিকট স্থানান্তর হতে হলে ছাত্র নতুন স্কুলে ভর্তি হতে পারেন। স্কুলে পড়াশুনার মানদণ্ড খারাপ হলে বা শিক্ষকদের ব্যবহার অপমানজনক হলে ছাত্র নতুন স্কুলে স্থানান্তর করতে পারেন। ছাত্র অন্য স্কুলে আপনার পছন্দের বিষয়ে অধিক পড়াশোনা করতে চান তাই নতুন স্কুলে স্থানান্তর করতে পারেন। কোন নির্দিষ্ট কারণে ছাত্র আপনার বর্তমান স্কুলে সঙ্কটে পরেছেন তাই নতুন স্কুলে স্থানান্তর করতে হতে পারেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *