যে কোন সময় ব্লাড প্রেসার কমে গিয়ে আপনি অজ্ঞান হয়ে পড়ে যেতে পারেন-শরীরে ক্লান্তি, ঘাম এসে দুর্বলতা অনুভব করতে পারেন – লো প্রেসার হলে করণীয় ২০২৩

লো প্রেসার কিভাবে বুঝবেন? – ব্লাড প্রেসারের রিডিং ৯০-৬০ থেকে ১২০-৮০ এর মধ্যে থাকলে স্বাভাবিক হিসেবে বিবেচনা করা হয়। কিন্তু ব্লাড প্রেসারের রিডিং ৯০/৬০ এর কম হলে সেটি হাইপোটেনশন হিসেবে ধরা হয়। এটি ধীরে ধীরে হার্টের কার্যক্ষমতা ধ্বংস করে দেয়। যে কারণে আপনার ব্লাড প্রেসারের রিডিং ৯০-৬০ এর কম দেখালে চিকিৎসকের সঙ্গে কথা বলা উচিৎ। এছাড়া এখন ডিজিটাল প্রেসার মেশিনের সাহায্য ব্লাড প্রেসার মাপলে মেশিনই হলে দিবে যে, আপনার ব্লাড প্রেসার লো নাকি হাই নাকি Normal অছে।

লো রক্ত চাপের লক্ষণ কি? বিছানায় দীর্ঘ বিশ্রাম, শারীরিক পানিশূন্যতা, সংক্রমণ, মানসিক চাপ, দুশ্চিন্তা, গর্ভাবস্থা ও কিছু ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ায় ব্লাড প্রেসার কমে যেতে পারে। তাই আপনি দৈনিক পরিশ্রমের একটিভি করুন। সমস্যাটির উল্লেখযোগ্য উপসর্গ হলো- মাথা ঘোরা, অজ্ঞান হওয়া, মনোযোগে সমস্যা, বমিভাব, ক্লান্তি, অলসতা, বুক ধড়ফড় এবং শ্বাসক্রিয়া ধীর বা কঠিন হওয়া। ব্লাড প্রেসার বাড়ানোর কিছু উপায় রয়েছে যা আপনি অনুসরণ করতে পারেন।

রক্তচাপ কমলে কেমন লাগে? রক্তচাপ কমলে একজন ব্যক্তি একটি সমস্যার সম্মুখীন হয়। রক্তচাপ কমলে মানসিকভাবে ব্যক্তি হতভাগ্যপূর্ণ না হওয়া সাধারণ হয়। অনেকে রক্তচাপ কমলে দুর্বল বা স্থুলত্ব সম্পন্ন হয়ে যায়। এছাড়াও কিছু সাধারণ লক্ষণ হতে পারে যেমন শীতল হাত ও পা, চোখের সামনে ধুঁটি, চকচকে দেখা ইত্যাদি। কিছু সমস্যার কারণে রক্তচাপ কমলে হতে পারে যেমন খাদ্যপদার্থ না খেয়ে বা পর্যাপ্ত পানি পান করা না হওয়া, পরিবেশের তাপমাত্রা অনেক বেশি হলে ইত্যাদি। রক্তচাপ কমলে একজন ব্যক্তির জীবনসঙ্গীদের কাছে স্বাস্থ্যকর হতে পারে এবং এর সাথে কিছু মেডিকেল সমস্যা যুক্ত হতে পারে যেমন হৃদমার্গের সমস্যা, অস্থি সন্ধি সমস্যা ইত্যাদি। স্বাস্থ্যকর রক্তচাপের জন্য সম্পূর্ণরূপে স্বাস্থ্যকর খাবার খেতে হবে।

রক্তচাপ কমলে কি খাবার বাড়িয়ে দিতে হবে? / রক্তচাপ কম বা বেশির জন্য ডাক্তারের পরামর্শ মোতাবেক ঔষুধ গ্রহণ করতে পারেন

আপনার ব্লাড প্রেসার কম হলে আপনি একা থাকবেন না। কোথাও গেলে বা কোন কাজে লিপ্ত হলে কাউকে পাশে রাখবেন।

Caption: change your life style to control blood pressure

ব্লাড প্রেসার নিয়ন্ত্রণ প্রক্রিয়া ২০২৩ । প্রেসার ঠিক রাখতে কি কি করবেন

  1. ডায়েট পরিবর্তন করুন: আপনার খাদ্যে লবণ, চিনি, ওয়াইট ফ্লোর, চিপস, সস, প্রসেরবেশন, ফাস্ট ফুড ইত্যাদি থেকে দূরে থাকুন। খুব গরম, তীব্র স্পাইসি খাবার থেকেও বিরত থাকুন। বরং সবজি, ফল, প্রোটিন ও ফাইবার রিচ খাবার এখন আপনার জীবনযাপনের অংশ হবে।
  2. ওজন কমান: ওজন কমান এবং মোটা বা স্থুলতা কমান একটি উপায় হতে পারে ব্লাড প্রেসার লো করার। আপনার ডাক্তারের সাজেশন মত ওজন কমাতে চেষ্টা করুন।
  3. ব্যায়াম করুন: স্বাস্থ্যকর ব্যায়াম করলে আপনার ব্লাড প্রেসার নির্দিষ্ট সীমার মধ্যে থাকতে পারে। আপনি হাঁটা, ব্রিস্ক ওয়াকিং, যোগাসন, কার্ডিও ভাস্কুলার ফিটনেস প্রোগ্রাম ইত্যাদি করতে পারেন। তবে ডাক্তারের সাথে আলোচনা করে কোন ব্যায়াম শুরু করুন।

রক্ত চাপ নিয়ন্ত্রণ করবো কিভাবে?

আপনার খাদ্য পদার্থ থেকে লবণ, চিনি, প্রসেরবেশন, সস ইত্যাদি এলাকার খাবার ও খাদ্য উপকরণ কম খাবার এবং প্রতিদিন সবজি, ফল ও প্রোটিন রিচ খাদ্য খাবার। স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়ার মাধ্যমে শরীরের শুধুমাত্র রক্তচাপ নম্বরগুলো না বরং শরীর একত্রে থাকার জন্য সম্পূর্ণ স্বাস্থ্যকর হবে। অতিরিক্ত ওজন থাকলে রক্তচাপ বাড়ে। তাই ওজন কমাতে চেষ্টা করুন। প্রতিদিন স্বাস্থ্যকর ব্যায়াম করা রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে।

সূত্র: প্রেসার লো হলে যা করবেন আপনি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *