বাইক কারও প্রয়োজনের বাহন আবার কারও বা শখের বাহন-বাইক নিজের পয়সায় কিনলে অবশ্যই ঠিকমত যত্ন নিবেন-বাপের পয়সায় কিনলে যত্ন নেয়া সম্পূর্ণ আপেক্ষিক বিষয় – বাইকে জ্বালানী সাশ্রয়ের উপায় ২০২৩

সকল বাইকের ক্ষেত্রে কি একই নিয়ম – না। তবে কিছু বিষয় একই যেমন, ইঞ্জিন অয়েল পরিবর্তন, পানি দিয়ে পরিস্কারকরণ এবং সময়ত মেইটিন্যান্স করাসহ গাড়ি নির্ধারিত গতিতে চালনা করা। এসব বিষয় ছোট বড় বা কম বা বেশি সিসির গাড়ির জন্য একই হয়ে থাকে।

ইঞ্জিন ভাল রাখার উপায় কি? ইঞ্জিনের দীর্ঘ স্থায়ীত্বের জন্য  স্পার্ক পাগ পরিস্কার রাখুন এবং গ্যাপ প্রয়োজন মত এডজাষ্ট করুন। অনুমোদিত ইঞ্জিন অয়েল (20w-50) (API-SL+JASO-MA) ব্যবহার করুন। নিয়মিত এয়ার ফিল্টার পরিস্কার করুন।কার্বোরেটর পরিস্কার রাখুন এবং আইডল স্পীড ঠিক করুন (১৪০০°১০০) আর পি এম। মোটরসাইকেল রাস্তায় নামানোর পূর্বে সঠিক এ্যাম্পিয়ারে ব্যাটারি চার্জ করুন। ব্যাটারি ১৫ দিন পর পর চেক করবেন, ইলেকট্রোলাইট লেবেল কমে গেলে শুধু ডিস্ট্রিল ওয়াটার দিবেন। কলের পানি কিংবা সালফিউরিক এসিড ব্যবহার করা যাবে না। ব্যাটারি কখনো উল্টো সংযোগ দেবেন না, এতে ইলেকট্রিক্যাল ও অন্যান্য পাটর্স নষ্ট হয়ে যেতে পারে। সার্ভিসিং এর সময় ইলেকট্রিক্যাল পার্টস এর উপর বেশি চাপে পানি ছিটাবেন না এবং পানি শুকানোর আগে মোটর সাইকেল স্টার্ট করা যাবে না, তাতে ইলেকট্রিক পার্টস নষ্ট হয়ে যেতে পারে।ভালো মাইলেজ পাওয়ার উপায় ২০২৩ । বাইকের ভালো মাইলেজ পেতে ১০টি সেরা টিপস

বাইকের জ্বালানি সাশ্রয় করার জন্য প্রথমে নিশ্চিত হতে হবে যে আপনার বাইকের জ্বালানি সঠিকভাবে কাজ করছে। এটা চেক করার জন্য আপনি কিছু ধাপসমূহ অনুসরণ করতে পারেন। যেমন- নিশ্চিত হতে হবে যে জ্বালানি পরিষ্কার এবং পুরানো না। যদি জ্বালানি ক্লোজ হয়ে থাকে তবে আপনি সেটি পরিষ্কার করতে পারেন একটি জ্বালানি ক্লীনার ব্যবহার করে। বাইকের একটি পর্যায় থাকতে হবে যেখানে জ্বালানি সাশ্রয় করা হয়। বাইকের প্রযুক্তির উপর নির্ভর করে এই পর্যায় ভিন্ন হতে পারে। আপনি প্রথমে জ্বালানির একটি পরিমাপ নেওয়ার জন্য একটি জ্বালানি পরীক্ষক ব্যবহার করতে পারেন। আপনি একটি জ্বালানি পরীক্ষক ব্যবহার করে জ্বালানির স্তর নির্ধারণ করতে পারেন এবং সেটি ঠিকমতো সেট করতে পারেন। ড্রাইভিং লাইসেন্স না থাকলে জরিমানা কত ২০২৩ । বাইকের ড্রাইভিং লাইসেন্স না থাকলে বড় জরিমানার সম্মুখীন হবেন

জ্বালানি সাশ্রয় করার আগে নিশ্চিত হতে হবে যে আপনার বাইক স্ট্যান্ড উঠিয়ে আছে এবং সেটি স্থিতান্তর এবং স্থির হয়ে আছে।জ্বালানি সাশ্রয় করার আগে নিশ্চিত হতে হবে যে বাইকের ইঞ্জিন ঠান্ডা হয়ে গেছে। এটি পরীক্ষার জন্য আপনি অপেক্ষা করতে পারেন কিছু সময় পরে ইঞ্জিন ঠান্ডা হলে সাশ্রয় করতে যাবেন। জ্বালানি সাশ্রয় করার আগে নিশ্চিত হতে হবে যে আপনার বাইকে কোনও জ্বলজ্জালি নেই। যদি আপনি কোনও জ্বলজ্জালি দেখেন তবে জ্বালানি সাশ্রয় করা হবে না। জ্বালানি সাশ্রয় করার আগে নিশ্চিত হতে হবে যে বাইকের ট্যাঙ্কে পর্যাপ্ত পরিমানের তেল রয়েছে। Bike smart Card check BD । বাইক বা গাড়ির Digital Registration কাগজ রেডি হয়েছে কি?

বাইক দীর্ঘমেয়াদী বা লং লাস্টিং করতে নিয়ম মেনে চালাতে হবে / বাজাজ বাইকের ক্ষেত্রে যত্ন খুবই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়

একটি দূর্ঘটনা সারা জীবনের কান্না, তাই বাইক চালানোর সময় গতিসীমা নিয়ন্ত্রণের রাখুন। কম গতিতে বাইক চালান দূর্ঘটনা কমে যাবে।

Caption: bajaj motors

জ্বালানী সাশ্রয়ের উপায় ২০২৩ । বাইক চালানোর সময় যে সকল বিষয় খেয়াল রাখতে হবে।

  1. স্বাভাবিক গতিতে (৪০-৪৫ কিঃ মিঃ স্পীডে পেট্রোল খরচ সবচেয়ে কম) মোটরসাইকেল চালানোর অভ্যাস গড়ে তুলুন ।
  2. ব্যস্ত সময়ে ফাকা রাস্তা বেছে নিন।
  3. (৪০-৫০) কি.মি. স্পীডে গাড়ী চালালে ডান পাশের রাইড কন্ট্রোল সুইচ অন করুন ।
  4. মোটরসাইকেলে অতিরিক্ত বোঝাই করবেন না। (২ জনের অধিক)
  5. ঘন ঘন ষ্টার্ট করে এবং বন্ধ করে অযথা পেট্রোল নষ্ট করবেন না।
  6. হঠাৎ ব্রেক করার অভ্যাস পরিহার করন। খুব প্রয়োজন না হলে হঠাৎ ব্রেক করবেন না ।
  7. এক্সেলারেটর ঘুরানোর সময় চিন্তা করে ঘুরান। যত বেশী ঘুরাবেন তত বেশী তেল বের হয়ে যাবে।
  8. যদি ২ মিনিটের চেয়ে বেশী কোথাও দাঁড়াতে হয় তবে ইঞ্জিন বন্ধ করে দিন ।
  9. মোটর সাইকেল থেকে পেট্রোল গন্ধ বের হলে কোথাও পেট্রোল লিক করছে কিনা দেখে নিন ।
  10. পেট্রোল ট্যাংক এর ঢাকনা পর্যন্ত পেট্রোল নেবেন না।
  11. ব্রেক ঠিকমত কাজ করে কিনা দেখে নিন। ব্রেক করার সময় সামনে এবং পিছনের ব্রেক এক সাথে চাপুন ।

পানির চাপে বাইক ধুলে কি কোন সমস্যা আছে?

মোটরসাইকেলটি অতিরিক্ত পানির চাপে ধোবেন না। ইগনিশন সুইচ/ স্পিডোমিটার/ টোকোমিটার/ইঞ্জিন স্টপ সুইচ/হর্ণ/হেড লাইট/অন্যান্য লাইট/ষ্টিয়ারিং লক। ৪. সব নাটবোল্ট বিশেষ করে ইঞ্জিন মাউন্টিং সিলিন্ডার হেড, ষ্টিয়ারিং কলাম এবং শক এবজরবার এর নাট ঠিকমত টাইট আছে কিনা দেখুন/ঠিক রাখুন। একসেলারেটর/ ক্লাচ ক্লাডলিভার এবং পেট্রোলট্যাপ ঠিকমত কাজ করে কিনা দেখুন/ঠিক করুন। ৬. স্পার্ক প্রাগ পরিস্কার করুন এবং গ্যাপ ঠিক করুন। ইঞ্জিন আইভেল আরপিএম ঠিক করুন। মোটরসাইকেল চলাচল নীতিমালা ২০২৩ । ১২৬ সিসির নিম্নগতির বাইক মহাসড়কে চলতে পারবে না

পিছনের শক এবজরবার সেটিং ঠিক আছে কিনা দেখুন/ঠিক করুন। সামনের এবং পিচনের ব্রেক ঠিকমত কাজ করে কিনা দেখুন/ঠিক করুন । ইঞ্জিন অয়েল, বদলিয়ে দিন। Mobil- Super 4T (20w 50 API SJ6+JASO MA) ব্যবহার করুন। অয়েল পাম্প ঠিকমত কাজ করে কিনা দেখুন/ঠিক করুন। চেইন অয়েল দিন এবং টেনশন ঠিক করুন। ব্যাটারি / ইলেকট্রোলাইট ঠিক আছে কিনা দেখুন/ঠিক করুন। সার্ভিস ম্যানুয়েল অনুযায়ী লুব্রিকেশন করুন । মোটরসাইকেলটি ডেলিভারী দেওয়ার পূর্বে চালিয়ে দেখুন। মোটরসাইকেলটি পরিষ্কার করুন।

Bajaj Discover 125 Service manual Bangla pdf । ডিসকভার সার্ভিস ম্যানুয়াল বুক ২০২৩

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *